নোটিশ :
জরুরী ভিত্তিতে সারাদেশে বিভাগীয় ব্যুরো প্রধান, জেলা, উপজেলা, বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজ পর্যায়ে সাংবাদিক নিয়োগ দেওয়া হবে। আগ্রহী প্রার্থীগণকে সিভি, জাতীয় পরিচয়পত্রের স্কান কপি ও সদ্য তোলা পাসপোর্ট সাইজের ছবির সাথে নিজের লেখা একটি সংবাদ ই-মেইলে পাঠাতে হবে। ই-মেইল :sidneynews24@gmail.com
শিরোনাম :
মায়ের পোট্রের্ট – অহনা নাসরিন খেলা – অহনা নাসরিন|| সিডনিনিউজ রাজকন্যা লতিফার অবিলম্বে মুক্তি চায় জাতিসংঘ জাতীয় গণমাধ্যম সপ্তাহকে রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতির দাবীতে ময়মনসিংহে স্মারকলিপি রাজশাহীর পুঠিয়ায় পৌর মেয়রের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা একটি মৃত্যু অতঃপর কিছু প্রশ্ন।। কলমেঃ অহনা নাসরিন সন্ধ্যা নামতেই কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে বসে মাদকের আসর আত্মনির্ভরশীলতাই সফলতা অর্জনের একমাত্র পথ – আব্দুর রহিম হাওলাদার (রাজু) রাজশাহীতে হাইকোর্টের নির্দেশ অমান্য করে অবৈধভাবে বালু তুলছেন প্রভাবশালীরা দৌলতখানে গাজাসহ এক মাদক সেবীকে আটক করেছে এসআই মোস্তফা ভোলার ভেদুরিয়ায় ব্যবসায়ীর ভোগ দখলিয় জমি যবর দখল করতে ভূমিদস্যুদের পায়তাড়া মুক্তিযোদ্ধা সন্তান সংসদ কুমিল্লা জেলার যুগ্ম আহ্বায়ক হলেন কামরুজ্জামান জনি ও আতিকুর রহমান কানাডায় বড়দিন উদযাপনে সতর্কতা নিজের বেতনের টাকায় দরিদ্রদের বাড়ি খাদ্য নিয়ে যাবেন ইউএনও নাহিদা ভোলার শিবপুরে মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে ইব্রাহীম চেয়ারম্যান টি-টুয়েন্টি ক্রিকেট টুর্নামেন্টের উদ্ভোধন সকলের ভালোবাসায় এগিয়ে যাচ্ছে ভিক্টোরিয়া ই-কমার্স ফোরাম, দুই হাজার বেকারের কর্মসংস্থান। শোক সংবাদ। সিডনিনিউজ২৪ডটকম ধনী দেশগুলোর বর্তমান ভূমিকার সমালোচনা কক্সবাজার নাগরিক সমাজের। ভোলার পশ্চিম ইলিশায় সারকারি খাল ভরাট করে জমি দখল করে নিচ্ছে “ফাইভ ষ্টার” ব্রিক্স ত্রিশালে পূজা উপলক্ষে ৫০০ কেজি করে চাল বিতরণ।
ইউরোপের স্বপ্নে ‘হারিয়ে যাচ্ছে’ সিলেটের তরুণরা

ইউরোপের স্বপ্নে ‘হারিয়ে যাচ্ছে’ সিলেটের তরুণরা

ইউরোপের স্বপ্নে ‘হারিয়ে যাচ্ছে’ সিলেটের তরুণরা!

এইচ,এম,রাহাত হাওলাদার  :: সিলেট প্রবাসী অধ্যুষিত অঞ্চল। ইউরোপ, আমেরিকা, মধ্যপ্রাচ্যসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে কয়েক লাখ সিলেটি বসবাস করছেন। এদের সিংহভাগই বিদেশে গেছেন বৈধ পথে। কিন্তু অবৈধ পথে পা বাড়নোর সংখ্যাও দিন দিন বাড়ছে। বিশেষ করে ইউরোপের বিভিন্ন দেশে পাড়ি দেওয়ার স্বপ্নে ঘর থেকে বেরিয়ে পড়ছেন সিলেটের অসংখ্য তরুণ-যুবক। তাদের অনেকেই দুর্গম যাত্রা পাড়ি দিয়ে স্বপ্নের দেশে পা রাখতে পারলেও বেশিরভাগের স্বপ্নই দুঃস্বপ্নে পরিণত হচ্ছে।

প্রাপ্ত তথ্যানুসারে, গেল কয়েক মাসে ইউরোপের স্বপ্নে পা বাড়িয়ে মারা গেছেন সিলেটের অন্তত ২২ তরুণ-যুবক। এছাড়া নিখোঁজ রয়েছেন অন্তত ৮ তরুণ। গেল প্রায় ১০ মাস ধরে কোন খোঁজ মিলছে না তাদের। এসব তরুণের পরিবারে এখন ঘোর অন্ধকার।

জানা গেছে, ইউরোপে যেতে সিলেটের তরুণ-যুবকরা ঝুঁকি নিচ্ছে। তারা দালালদের মাধ্যমে অবৈধ পথে স্বপ্নের দেশে ঢুকতে টাকা খরচ করছে। কিন্তু অবৈধভাবে বিভিন্ন দেশে ঢুকতে গিয়ে প্রাণ যাচ্ছে তাদের।

চলতি বছরের ৯ মে লিবিয়ার উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় উপকূলের জুয়ারা শহর থেকে অন্তত ৭৫ জন অভিবাসী নিয়ে ইউরোপের দেশ ইতালির উদ্দেশ্যে সাগর পথে রওয়ানা দেয় একটি বড় নৌকা। অভিবাসীদের মধ্যে প্রায় ৬০ জন ছিলেন বাংলাদেশি। তিউনিসিয়ার উপকূলে ওই নৌকা থেকে অভিবাসীদের ছোট একটি নৌকায় তোলার সময় সেটি ডুবে যায়। এতে নিহত হন অর্ধশতাধিক অভিবাসী। নিহতদের মধ্যে বাংলাদেশি ছিলেন ৩৭ জন; যেখানে অন্তত ২০ জন ছিলেন সিলেট অঞ্চলের।

এদিকে, সিলেট সদর উপজেলার হাটখোলা ইউনিয়নের পাগইল গ্রামের মখলিছুর রহমানের ছেলে শাহীন আহমদ বছর দুয়েক আগে ইরাকে গিয়েছিলেন। তার লক্ষ্য ছিল ইতালি যাওয়া। ইরাক থেকে দালালের মাধ্যমে তুরস্ক হয়ে গ্রিসে যান শাহীন। গেল ২৩ আগস্ট ইতালির উদ্দেশ্যে একটি ভ্যানে চড়ে আরো কয়েকজনের সঙ্গে রওয়ানা দেন তিনি। কিন্তু পথিমধ্যে মেসিডোনিয়ার দেবার নামক স্থানে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হন শাহীন।

২০১৮ রাশিয়া বিশ্বকাপ চলাকালে সে দেশে যান সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলার কারিকোনা গ্রামের ফরিদ উদ্দিন। পরে দালালের মাধ্যমে ইউক্রেনে ঢুকেন তিনি। এরপর স্লোভাকিয়া হয়ে ইতালি যাওয়ার পথে জঙ্গলে মারা যান ফরিদ। গত ২৮ আগস্ট ইতালির পথে দালালসহ আরো কয়েকজনের সঙ্গে রওয়ানা দিয়েছিলেন তিনি। এরপর থেকে তার কোনো খোঁজ পাচ্ছিল না দেশে থাকা পরিবার। পরে ৯ সেপ্টেম্বর স্লোভাকিয়ার জঙ্গল থেকে ফরিদের মরদেহ উদ্ধার করে দেশটির পুলিশ। গত ৩ অক্টোবর তার মরদেহ দেশে আনা হয়।

জানা গেছে, ইউরোপের দেশে যাওয়ার পথে নিখোঁজ রয়েছেন সিলেটের অন্তত ৮ তরুণ। নিখোঁজ এই তরুণরা হলেন- কানাইঘাট উপজেলার দাওয়াদিরি গ্রামের ইমদাদ আহমদের ছেলে জাকারিয়া আহমদ, জকিগঞ্জ উপজেলার গড়রগ্রামের এমাদ উদ্দিনের ছেলে তোফায়েল আহমদ, বিয়ানীবাজার উপজেলার লাউতা ইউনিয়নের উত্তর গাংপার গ্রামের আব্দুল লতিফের ছেলে আলতাফ হোসেন, কুড়ারবাজার ইউনিয়নের খশির চাতল গ্রামের মিছবাউল হকের ছেলে সুলতান মাহমুদ পলাশ, একই ইউনিয়নের আব্দুল্লাপুর গ্রামের আছার উদ্দিনের ছেলে জুবেল আহমদ, খশির গ্রামের ছয়দুর রহমানের ছেলে আবু তাহের, খশির নয়াবাড়ী গ্রামের সাইদুল হকের ছেলে ওবায়দুল হক এবং মুড়িয়া ইউনিয়নের পশ্চিম ঘুঙ্গাদিয়া গ্রামের মিনহাজ উদ্দিনের ছেলে আবু সুফিয়ান।

নিখোঁজ আলতাফ হোসেনের বাবা আব্দুল লতিফ জানান, তার ছেলে গেল বছর জুলাইয়ে ঢাকায় একটি কোম্পানির ট্রেনিংয়ে যাওয়ার কথা বলে বাড়ি থেকে বের হয়। সেখান থেকে সে বিয়ানীবাজারের মুড়িয়া ইউনিয়নের ঘুঙ্গাদিয়া নয়াগাঁওয়ের দালাল মুতির মাধ্যমে লিবিয়ায় যায়। সেখানে তাকে দুই মাস জিম্মি রাখা হয়। পরে দেশ থেকে সাড়ে ৪ লাখ টাকা দিয়ে তাকে মুক্ত করা হয়। পরে গেল বছরের ২২ ডিসেম্বর আলতাফ সিলেটের আরো কয়েকজন তরুণের সাথে সাগরপথে ইতালি যেতে নৌকায় ওঠে। নৌকায় ওঠার আগে সে ফোন করেছিল। এর পর থেকে তার আর কোন খোঁজ মিলছে না।

নিখোঁজ পলাশের বাবা মিছবাউল হক জানান, দালাল বলছে তার ছেলে আফ্রিকার কোন এক দেশের জেলে রয়েছে। তার কথায় বিশ্বাস রেখে আমরা দিন গুণছি।


Leave a Reply

Your email address will not be published.




এটি হাসনা ফাউন্ডেশনের একটি অঙ্গ প্রতিষ্ঠান, এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা,ছবি,অডিও,ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করা বেআইনি । copyright© All rights reserved © 2018 sidneynews24.com  
Desing & Developed BY ServerNeed.com