নোটিশ :
জরুরী ভিত্তিতে সারাদেশে বিভাগীয় ব্যুরো প্রধান, জেলা, উপজেলা, বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজ পর্যায়ে সাংবাদিক নিয়োগ দেওয়া হবে। আগ্রহী প্রার্থীগণকে সিভি, জাতীয় পরিচয়পত্রের স্কান কপি ও সদ্য তোলা পাসপোর্ট সাইজের ছবির সাথে নিজের লেখা একটি সংবাদ ই-মেইলে পাঠাতে হবে। ই-মেইল :sidneynews24@gmail.com
শিরোনাম :
বিজ্ঞাপনের ঘড়িতে দশটা দশ বাজিয়ে রাখার রহস্য  বাংলাদেশ ব্যুরো প্রধানের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন সিডনি নিউজ সম্পাদক স্কুলের বেতন নিয়ে অভিভাবকদের চাপ নয়: শিক্ষামন্ত্রী ভোলায় এক মেয়েকে ধর্ষনের পর অন্য মেয়েকে বাল্য বিবাহ করেছে বিজিবি সদস্য প্রবাসীর ডায়েরি: মহামারীতে বেঁচে থাকার গল্প সিডনিতে করোনা আক্রান্ত একই পরিবারের ৪ বাংলাদেশি হাসপাতালে সৌদি আরব, ওমান সহযোগিতা আরও বাড়াতে সম্মত হয়েছে বাঙালি রান্না নিয়ে এগিয়ে চলেছেন কিশোয়ার নতুন অর্থবছরের শুরুতে অস্ট্রেলিয়ার অভিবাসন আইনে এসেছে বেশ কয়েকটি পরিবর্তন কবি আদিত্য নজরুলের কবিতা দুঃখ পেলে পাথরও কাঁদে – কবি আদিত্য নজরুলের কাব্যগ্রন্থ। রেল শুধু বাড়ি পৌঁছায় না; খুঁজে দেয় জীবনসঙ্গী মায়ের পোট্রের্ট – অহনা নাসরিন খেলা – অহনা নাসরিন|| সিডনিনিউজ রাজকন্যা লতিফার অবিলম্বে মুক্তি চায় জাতিসংঘ জাতীয় গণমাধ্যম সপ্তাহকে রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতির দাবীতে ময়মনসিংহে স্মারকলিপি রাজশাহীর পুঠিয়ায় পৌর মেয়রের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা একটি মৃত্যু অতঃপর কিছু প্রশ্ন।। কলমেঃ অহনা নাসরিন সন্ধ্যা নামতেই কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে বসে মাদকের আসর আত্মনির্ভরশীলতাই সফলতা অর্জনের একমাত্র পথ – আব্দুর রহিম হাওলাদার (রাজু)
বোরহানউদ্দিন হাসপাতালের সরকারি ঔষধ অবৈধভাবে নার্সের পকেটে

বোরহানউদ্দিন হাসপাতালের সরকারি ঔষধ অবৈধভাবে নার্সের পকেটে

এইচ. এম এরশাদ,বোরহানউদ্দিন প্রতিনিধিঃ ভোলার বোরহানউদ্দিনে অবৈধভাবে হাসপাতালের ৪৮ পাতা সরকারি ওষুধ বাড়ি নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ উঠেছে তৃপ্তি রায় নামক নার্সের বিরুদ্ধ। অভিযুক্ত তৃপ্তি জেলার বোরহানউদ্দিন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সিনিয়র স্টাফ নার্স হিসেবে কর্মরত আছেন।

রোববার দুপুরে ওই হাসপাতাল থেকে বিভিন্ন ধরনের ৪৮ পাতা ওষুধ বাড়ি নেয়ার পথে এলাকাবাসী তাকে বাঁধা দেয়।এ সময় ওই নার্স স্থানীয় সংবাদকর্মীদের ক্যামেরা বন্ধি হন।সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভিডিওটি ভাইরাল তোলপাড় সৃষ্টি হয়।

স্থানীয়রা জানান, তৃপ্তি রায় দীর্ঘ দিন ধরে বোরহানউদ্দিন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সিনিয়র স্টাফ নার্স হিসেবে কাজ করছেন। যার কারণে সরকারি ওই প্রতিষ্ঠানটির সকলের সাথে তার সুসর্ম্পক তৈরি হয়।

এই সুবাদে তিনি বিভিন্ন সময় হাসপাতাল থেকে অবৈধভাবে ঔষধ বাড়ি নিয়ে যেতেন। একই ভাবে রোববার হাসপাতালের বহির্বিভাগের ঔষধ সরবরাহ কেন্দ্র থেকে ৪৮ পাতা ওষুধ নিয়ে তিনি বাড়ি যাচ্ছিলেন, এ সময় পথে স্থানীয়রা তাকে ধরে ফেলে।

পরে তাকে এত ওষুধ কোথায় ও কেন নিয়ে যাচ্ছে প্রশ্ন করলে কোনো উত্তর না দিয়ে দ্রুত আবার হাসপাতালে চলে যান।

পরে স্থানীয়রা পিছু পিছু হাসপাতালের ওই কক্ষে ছুটে যান,  এ সময় স্থানীয়রা তার হাতে থাকা বক্স ও ইউনিফর্মের পকেট থেকে বিভিন্ন ধরনের ৪৮ পাতা ওষুধ বের করে।

সোমবার সকালে সরেজমিন পরিদর্শনে গিয়ে আরও চমকপ্রদ তথ্য পাওয়া যায়।

হাসপাতালে ভর্তি একাধিক রোগীর সাথে কথা বললে তারা জানান,সব রকমের ঔষধ বাহির থেকে কিনতে হয়।

ছোট মানিকা গ্রামের ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে আসা রোগী আমির হোসেন জানান,রবিবার তারা হাসপাতালে ভর্তি হন।

স্যালাইন জিংক সহ সব ঔষধ তাদেরকে বাইরের থেকে কিনতে হয়েছে।অথচ স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ও স্টোরকিপার আব্দুল মান্নান জানান,হাসপাতালে ডায়রিয়ার স্যালাইন ( ৫০০ এমএল ৩০ টি)ও জিংক ঔষধ আছে।

তবে বাইরে থেকে কেন কিনতে বলেছেন এর সদুত্তর দিতে পারেনি কর্তব্যরত নার্স মর্জিনা বেগম।একই রকম অভিযোগ আন্তঃবিভাগে ভর্তি সাদেজা ইয়াসমিনসহ অনেকের। জনমনে প্রশ্ন তাহলে হাসপাতালের বরাদ্দকৃত ঔষধগুলো যাচ্ছে কোথায়?

তবে আন্তঃবিভাগে বরাদ্দকৃত ঔষধের রেজিস্ট্রার দেখতে চাইলে দায়িত্বরতরা দেখাতে অপারগতা প্রকাশ করেন। বিতরন বিভাগের দায়িত্বরত আবুল কালাম জানান,স্লিপ নিয়ে আসলে আমি ঔষধ দিতে বাধ্য।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত নার্স তৃপ্তি রানী রায় জানান, তিনি ৬/৭ টি স্লিপের মাধ্যমে তার আত্মীয়-স্বজনদের জন্য ওই ঔষধগুলো নিয়ে যাচ্ছিলেন।

প্রয়োজনে মাঝে মাঝেই এভাবে ওষুধ নিয়ে যান বলে স্বীকার করেন তিনি। প্রক্রিয়াটি বৈধ কি না এমন প্রশ্নের জবাবে নিরব থাকেন তিনি।

আবাসিক মেডিকেল অফিসার ( আরএমও) ডাক্তার সাজ্জাদ হোসেন জানান, ৪৮ পাতা সরকারি ঔষধ এভাবে নেওয়া একটি শাস্তিযোগ্য অপরাধ, ৩ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হবে।তাদের রিপোর্ট অনুসারে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

বোরহানউদ্দিন উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা তপতী চৌধুরী জানান, আইন বর্হিভূতভাবে ঔষধগুলো নেওয়া হয়েছে। বিষয়টি আমার পছন্দ হয়নি, তিনি আরও বলেন,সিভিল সার্জনের অনুকূলে চিঠি প্রেরণ করা হয়েছে, তারা বিষয়টি তদন্ত করবেন।

ভোলার সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ ওয়াজেদ আলী বলেন,৩ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত রিপোর্ট অনুসারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।


Leave a Reply

Your email address will not be published.




এটি হাসনা ফাউন্ডেশনের একটি অঙ্গ প্রতিষ্ঠান, এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা,ছবি,অডিও,ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করা বেআইনি । copyright© All rights reserved © 2018 sidneynews24.com  
Desing & Developed BY ServerNeed.com